নাঁকুগাও ও বুরুঙ্গা ব্রীজ রক্ষায় সাবেক কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী এমপির প্রতীকী প্রতিবাদ

দ্বারা hello@anbnews24.com
নাঁকুগাও ও বুরুঙ্গা ব্রীজ রক্ষায় সাবেক কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী এমপির প্রতীকী প্রতিবাদ

নালিতাবাড়ী (শেরপুর ) প্রতিনিধিঃ শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে সীমান্ত মহাসড়কের ভোগাই ও চেল্লাখালী নদীর উপর নাঁকুগাও ও বুরুঙ্গা ব্রীজে অপরিকল্পিত বালু উত্তোলন  ও অতিরিক্ত ওজন বহনকারী ট্রাক চলাচলে ব্রীজ দুটি হুমকির মুখে পড়েছে।এ ব্যাপরে উপজেলার সচেতন নাগরিকগণ সড়ক ও সেতু মন্ত্রণালয় বরাবর প্রতিকার চেয়ে লিখিত আবেদন করেছেন ।

নালিতাবাড়ী উপজেলার নাঁকুগাও ও বুরুঙ্গা ব্রীজ রংপুরের কুড়িগ্রাম থেকে সিলেট-তামাবিল পর্যন্ত সীমান্ত মহাসড়কের সংযোগস্থল । তৎকালীন আওয়ামী লীগ   সরকার ১৯৯৮- ৯৯ অর্থবছরে ৪ কোটি ৪৭ লাখ টাকা ব্যায় ধরে  সরকার প্রধান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেন।পরবর্তীতে ২০০১ সালে  বিএনপি তথা চারদলীয় জোট  সরকার ক্ষমতায় আসলে ব্রীজ নির্মাণ কাজ ২০০৮ সাল পর্যন্ত স্থগিত থাকে।পরবর্তীতে পুনরায় আওয়ামী লীগ ক্ষমতা আসার পর বরাদ্দ বৃদ্ধি করে ১২ কোটি টাকা ব্যায়ে ১০ টন পরিবহন ক্ষমতা সম্পন্ন ১২৮ টি পাইল ,৩টি ব্যাচ  দিয়ে ১৮৬.৪০ মিটার দীর্ঘ ব্রীজ নির্মাণ করা হয়।অপর দিকে ২০১৩ সালে এই সীমান্ত মহাসড়কে স্থাপন করা হয় বুরুঙ্গা ব্রীজ।নির্মাণ কাজ শেষে ৬ অক্টোবর মাননীয় সড়ক ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের উদ্বোধন করেন ।

নদী দুটির ৩০ থেকে ৪০ ফুট তলদেশ থেকে সেলু মেশিনের তৈরী ড্রেজার দিয়ে একদল বালু খেকোর দল অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের ফলে দুটি ব্রীজের বেইল পাইলক্যাপ মারাত্মক হুমকির মুখে পড়েছে।এছাড়া প্রতিদিন অতিরিক্ত ৫০-থেকে ৬০ টন বালু বোঝাই ১০ চাকার ট্রাক চলাচল করে ব্রীজ দুটির ধ্বংস নিশ্চিত করেছে।ফলে বর্ষা মৌসুমে  পাহাড়ি ঢলে যেকোনো সময় ধসে পড়তে পারে ব্রীজটি।  চলতি বছর ফেব্রুয়ারী মাসে নাঁকুগাও ব্রীজের ছাদে ভাঙ্গন দেখা দেয়।স্থানীয় এলজিইডি তরিঘরি মেরামত করলেও নদী থেকে বালু উত্তোলন ও অতিরিক্ত বোঝাই করা ১০ চাকার ট্রাক কর্তৃপক্ষ বন্ধ করেনি।রাষ্ট্রীয় সম্পদ এভাবে নষ্ট হওয়াতে সচেতন নাগরিকগণ এই অভিযোগ মন্ত্রনালয়ে প্রেরণ করেছেন।তারা অভিযোগে বলেন — সরকারীভাবে  ডাককৃত নদী-মহলের  আয়তন ২৬৮৭ একর পয়েন্ট।যার মৌজা নালিতাবাড়ী ছিটপাড়া,শিমুলতলা,গড়কান্দা,ফুলপুর,কেরেঙ্গা পাড়া, আন্ধারুপাড়া।পরবর্তীতে এই ডাক পরিবর্তন করে ২৬৯০ একর পয়েন্ট কেরেঙ্গা পাড়া হতে নাঁকুগাও পর্যন্ত সরকারী বিধি অমান্য করে অমান্য করে ডাক বহির্ভূত ভাবে ভোগাই নদীর  সমগ্র অঞ্চল থেকে বালু উত্তোলণ করে ও  ইজারাদার  মেসার্স আল আমিন ট্রেডার্সের মালিক শহিদুল হক (সাং-কাচারীপাড়া) অন্যায়ভাবে ২-৩ কোটি টাকা রয়েলিটি আদায় করে। একই ভাবে চেল্লাখালী নদীতে বালু উত্তোলন ও ব্রীজের উপর দিয়ে অতিরিক্ত ১০ চাকার  ট্রাক বালু বহন করে হুমকির মুখে ফেলেছে । গত ১৮ মে সাবেক কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী নাঁকুগাও স্থলবন্দর এলাকায় ঈদ উপহার বিতরণ করে মাত্র ৩ কিলোমিটার ব্যবধানে রামচন্দ্র কুড়া ব্রিজের উপর দিয়ে না গিয়ে ২৪ কিলোমিটার পথে অন্য পথে গমন করেন । স্থানীয় আওয়ামী নেতৃবৃন্দ জানিয়েছে সাবেক কৃষি মন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী এমপি ব্রীজ ধ্বংস হওয়াতে প্রতীকী প্রতিবাদ করেছেন ।

শেয়ার করুন
0 মন্তব্য

মতামত দিন

Related Articles