কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে টেন্ডার বাণিজ্যের অভিযোগ

দ্বারা hello@anbnews24.com
কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে টেন্ডার বাণিজ্যের অভিযোগ

এম.সুমন কুড়িগ্রাম থেকেঃ  কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে সম্প্রতি পছন্দের ঠিকাদারকে কাজ পাইয়ে দেয়ার লক্ষ্যে গোপন কাজ পাইয়ে দিতে টেন্ডার বাণিজ্যের অভিযোগ উঠেছে ।

 হাসপাতালের পথ্য, ধূপি ও ষ্টেশনারী ঠিকাদারী কাজ গোপনে সম্পূর্ন করার লক্ষ্যে বিজ্ঞাপন গোপন করে টেন্ডার কার্য্য সম্পন্ন করার অপকৌশল ফাঁস হয়েছে। ফলে টেন্ডার কাজে অংশগ্রহনে বঞ্চিত ঠিকাদারদের তোপের মুখে পড়েন কুড়িগ্রাম সদর হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডা: জাকিরুল ইসলাম লেলিন।

তথ্যসুত্রে জানাগেছে — হাসপাতালের যে কোন টেন্ডার দীর্ঘদিন থেকে গোপন করে উৎকোচ গ্রহণের মাধ্যমে পছন্দের ঠিকাদারকে কাজ দেয়ার অভিযোগ অনেক পুরানো বলে জানা গেছে।

করোনা সংকটে জর্জরিত জাতীর এই ক্রান্তিকালে চিকিৎসা সেবা লকডাউন করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ গোপনে গত ২৮ টেন্ডার জমা নেন । ২৮ মে দরপত্র দাখিল  শেষ দিনে অন্যান্য ঠিকাদাররা খবর পেয়ে তত্বাবধায়কের কার্য্যালয় ঘেরাও করে। এসময় ঠিকাদারদের এবং হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বাকবিতন্ডার এক পর্যায়ে সাংবাদিকরা তত্ববধায়কের কার্য্যলয়ে  গিয়ে উপস্থিত হন এবং টেন্ডারের বিজ্ঞাপন  সম্পর্কে জানতে চান । দৈনিক এশিয়ার বানী ও দৈনিক মুসলিম নিউজ পত্রিকার কথা উল্লেখ করেন কর্তৃপক্ষ । বিজ্ঞাপনটি কোন পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে কি না এ ব্যপারে  সংশয় প্রকাশ করেন স্থানীয় ঠিকাদার গন ।

হাসপাতালের হিসার রক্ষক আশরাফ মজিদ জানান, বিজ্ঞাপনটি দৈনিক এশিয়ার বানী ও দৈনিক মুসলিম নিউজ পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে তবে তা অদ্যাবদি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে এসে পৌচ্ছায়নি।

অভিযোগে জানা যায়, ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতাল জেলাবাসীর চিকিৎসার একমাত্র ভরসা। কাংঙ্খিত চিকিৎসা সেবা তো দূরের কথা উল্টো হাসপাতালের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের সীমাহীন দূর্নীতির কারনে বিনামূল্যের ওষুধ অতিরিক্ত মূল্যে কিনতে হয় রোগীদের। হাসপাতালে কম্বল, মশারী, চাদর ও বালিশের কভার দেয়ার নিয়ম থাকলেও সেগুলো পায়না সব রোগী। অসাধু উপায়ে হাসপাতালের ঠিকাদারী কাজ পাইয়ে দিয়ে নিজেই ঠিকাদারী করেন হিসাব রক্ষক আশরাফ মজিদ।

হাসপাতালে আউট সোর্সিং এর ঠিকাদারী কাজে অনিয়মের অভিযোগ রয়েছে । হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ  ভূয়া সনদ দেখিয়ে চূড়ান্ড ঠিকাদার হিসেবে স্বরলিপী সিকিউরিটি সার্ভিসিং প্রাইভেট লিমিটেড নামের প্রতিষ্ঠানকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে প্রেরণ করে চুড়ান্ত ঠিকাদার নিয়োগের জন্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রেরন করেছে । এই  কাগজ পত্র সঠিক নয় বলে দাবী করা হয়েছে ।

 লিখিত অভিযোগে জেলা সেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক ও আল ফারাহ সিকিউরিটি সির্ভিস লিমিডেটের স্থানীয় প্রতিনিধি মো: নূরুজামান অভিযোগ করেন স্বরলিপী সিকিউরিটি সার্ভিস লিমিটেড এর অভিজ্ঞতার সনদ, ব্যাংক সলভেন্সী, কেন্দ্রীয় সিকিউরিটি সার্ভিসের সদস্যের ভূয়া সনদ জমা দিয়েছে।

এসব অনিয়মের ব্যাপারে জেনারেল হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডা: জাকিরুল ইসলাম সাথে মোবাইলে কথাহলে তিনি জানান,ঠিকাদারদের সাথে একটু সমস্যা হয়েছিল সেটা সমাধান হয়েছে।

শেয়ার করুন
0 মন্তব্য

মতামত দিন

Related Articles