জাককানইবিতে সান্ধ্যকালীন ভর্তি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ; ভিসির বক্তব্য দিতে অপারগতা!

দ্বারা hello@anbnews24.com
জাককানইবিতে সান্ধ্যকালীন ভর্তি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ; ভিসির বক্তব্য দিতে অপারগতা!

জাককানইবি প্রতিনিধি: করোনা মহামারীর কারণে জাতীয় কবি কাজী নজরূল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সান্ধ্যকালীন কোর্স (স্নাতকোত্তর) শ্রেণীর ভর্তি প্রক্রিয়ায় রাষ্ট্রপতির নিষেধাজ্ঞা রয়েছে,  তবুও  ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদ বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব ওয়েবসাইটে (MBA; Evening Program) এর Fall-2020 শিক্ষাবর্ষে ভর্তি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে।যাহা বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য’র (রাষ্ট্রপতি)   নিষেধ উপেক্ষা করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসণ ভর্তি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে। যেখানে বিশ্ববিদ্যালয় একাডেমিক কার্যক্রম করোনা মহামারীর কারণে ১ বছরের অধিককাল ধরে বন্ধ রয়েছে । সেখানে শুধুমাত্র বাণিজ্যিক কারণে ভর্তি করা হচ্ছে।অপরদিকে সাধারণ শিক্ষার্থীরা একাডেমিক সুবিধা থেকে বঞ্চিত।

সান্ধ্যকালীন কোর্সে ভর্তি প্রক্রিয়ায় স্নাতকোত্তর শ্রেণীতে শিক্ষার্থী ভর্তির বিষয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ এইচ এম মোস্তাফিজুর রহমানের নিকট   একজন গনমাধ্যম কর্মী জানতে চাইলে  এই বিষয়ে কথা বলতে অপারগতা জানিয়ে বলেন, সান্ধ্যকালীন কোর্স নিয়ে আমি কোন বক্তব্য দিচ্ছিনা। আর টেলিফোনে আমি কোন বক্তব্যও দিবো না। তিনি অরও বলেন, যে টাইমই হোক,আমিতো করোনা টাইমে অফিসে আসছি, মিটিং করছি। তুমি অফিসে আসো তখন কথা হবে,নিরাপদে থাকো বলে ফোন কেটে দেন।

টেলিফোনে উপাচার্যের বক্তব্য না দেয়া প্রসঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয় প্রেসক্লাবের সভাপতি হাবিবুল্লাহ বেলালি (মারুফ) বলেন, করোনা মহামারীর কারণে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ। এর মধ্যেও সংবাদকর্মীরা বিভিন্ন সোর্সের মাধ্যমে তথ্য সংগ্রহ করে তা প্রকাশে কাজ করে। সংশ্লিষ্ট দপ্তর থেকে সত্যতা যাচাই করেই সংবাদ প্রকাশ করা হয়। এই সময়ে উপাচার্য স্যারের টেলিফোনে বক্তব্য না দেয়ার বিষয়টি স্ববিরোধীতার সামিল। বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ আর বলছেন দপ্তরে আসতে আর তাছাড়া তিনি সান্ধকালিন কোর্স নিয়ে বক্তব্য দিতেও অপারগতা প্রকাশ করেন যা অতন্ত দুঃখজনক। উপাচার্য স্যারের এমন সিদ্ধান্ত ক্যাম্পাস সাংবাদিকতার জন্যে হুমকি স্বরূপ।তিনি দ্রুতই এই অবস্থান থেকে সড়ে আসবেন বলে প্রত্যাশা করেন।     

 

শেয়ার করুন
0 মন্তব্য

মতামত দিন

Related Articles