কুষ্টিয়ায় প্রকাশ্যে ৩ জনকে গুলি করে হত্যা, এসআই আটক

দ্বারা hello@anbnews24.com
কুষ্টিয়ায় প্রকাশ্যে ৩ জনকে গুলি করে হত্যা, এসআই আটক

কুমারখালী (কুষ্টিয়া): পরকীয়ার জের ধরে কুষ্টিয়া কাস্টমস মোড়ে প্রকাশ্যে গুলি করে একই পরিবারের তিনজনকে হত্যা করা হয়েছে। এই ঘটনায় কুষ্টিয়া মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে হত্যাকারী প্রেমিক এসআই সৌমেনকে আটক  করা হয়েছে। এসআই সৌমেন খুলনা ফুলতলা থানায় কর্মরত।

নিহতরা হলেন- শাকিল (২৮), আসমা (২৫) এবং রবিন (৫)। তাদের মধ্যে শাকিল বিকাশের ডিস্ট্রিবিউশন সেলস অফিসার পদে (ডিএসও) চাকরি করতেন। শাকিল কুমারখালী উপজেলার চাপড়া ইউনিয়নের শাওতা গ্রামের মেসবাহ আলীর ছেলে। আসমার বাড়ি কুমারখালী উপজেলায়। রবিন আসমার ছেলে। 

রাসেল নামের একজন প্রত্যক্ষদর্শী জানান, সকাল ১১টার দিকে কাস্টমস মোড়ে ভাড়া করা দোতলা বাড়ীতে স্বামী শাকিল হোসেন (২৮), স্ত্রী আসমা খাতুন (২৫) এবং তাদের শিশু সন্তান রবিন (৫) বসবাস করতেন। স্বামী-স্ত্রী ও তাদের এক ছেলেকে নিয়ে বসবাস করা অবস্থায় জনৈক এক সন্ত্রাসী বাড়ীর মধ্যে প্রবেশ করে প্রথমে আসমা খাতুনকে মাথায় গুলি করে এবং পরে পিতা শাকিলকে গুলি করে মারাত্মক আহত করলে শিশু রবিন (৫) সন্তান দৌঁড়ে ঘর থেকে পালিয়ে রাস্তায় চলে আসে। 

এসময় ওই সন্ত্রাসী বাড়ী থেকে বের হয়ে রাস্তার উপর প্রকাশ্যে শিশুটির মাথায় গুলি করে। ঘটনা এলাকাবাসী দেখতে পেয়ে দ্রুত কুষ্টিয়া মডেল থানায় খবর দেয় এবং ঘটনাস্থলে ওই সন্ত্রাসীকে ইট পাটকেল নিক্ষেপ করে ঘিরে রাখে। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে তাকে গ্রেপ্তার করে। 

ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ আহতদের উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করলে সেখানে কর্তব্যরত ডাক্তার মাতা আসমা খাতুন (২৫) কে মৃত ঘোষণা করেন এবং পিতা শাকিল হোসেন (২৮) ও ছেলে রবিন (৫)কে  অপারেশ থিয়েটারে নিয়ের পর সেখানে ওই দুইজন মারা যায়। 

এদিকে, পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হওয়ার পর জানা যায় এসআই সৌমেনের সাথে আসমা খাতুনের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। এরই প্রতিশোধ নিতেই এই হত্যাকান্ড ঘটানো হয়েছে। তবে পুলিশ বিষয়টি তদন্ত না হওয়া পর্যন্ত কিছুই বলতে পারছেন না।

কুষ্টিয়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, হত্যাকারীকে আটক করা হয়েছে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।   

 

শেয়ার করুন
0 মন্তব্য

মতামত দিন

Related Articles