সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে দেশের বিভিন্ন স্থানে ঈদুল আজহা উৎযাপন

দ্বারা hello@anbnews24.com
সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে দেশের বিভিন্ন স্থানে ঈদুল আজহা উৎযাপন

এএনবি নিউজ ডেস্ক: সুত্র জাতীয় দৈনিক: সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের সঙ্গে মিল রেখে মঙ্গলবার দেশের বিভিন্ন স্থানে ঈদুল আজহা পালিত হয়েছে। ওইসব এলাকার মুসল্লিরা বছরের দুইটি ঈদ উৎসব সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে উদযাপন করে থাকে। ঈদুল আজহার জামাত আদায় ও পশু কোরবানি হয়েছে। ঈদ জামাত থেকে বর্তমান করোনা পরিস্থিতি থেকে মুক্তির জন্য দোয়া ও মোনাজাতও করেছেন মুসল্লিরা।

গৌরীপুর : ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলার বাহাদুরপুর সুরেশ্বর দরবার শরীফে সৌদি আরবের সাথে সময় তারিখ মিল রেখে মঙ্গলবার ২০ জুলাই ঈদুল আজহা উদযাপিত হয়েছে। সকাল ৬টায় প্রথম জামাতে ইমামতি করেন মো. সেকান্দর আলী। সকাল সাড়ে ৯টায় ঈদের দ্বিতীয় নামাজের জামাতে ইমামতি করেন হযরত মাওলানা মো. ইব্রাহিম। মহিলারাও পৃথক জামাতে নামাজ আদায় করেন। সুরেশ্বরের মুরীদান ভক্তগন দূর-দূরান্ত থেকে সকাল থেকেই জামাতে নামাজ আদায়ের জন্য হাজির হন। ময়মনসিংহ, ঈশ্বরগঞ্জ, নান্দাইল, ফুলপুর, শম্ভুগঞ্জসহ বিভিন্ন স্থান থেকে আগত দেড় শতাধিক মানুষ এ জামাতে অংশ গ্রহণ করেন। বিশ্ব মুসলিম উম্মার সম্প্রীতি-শান্তি কামনায় মোনাজাত পরিচালনা করেন হযরত মাওলানা মো. ইব্রাহিম। মোনাজাত শেষে কোলাকুলি করে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে শিশুরাও। ভক্তগনের জন্য দরবারের পক্ষ থেকে খাওয়া-দাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়।
 

ধর্মপাশা( সুনামগঞ্জ) : সুনামগঞ্জের ধর্মপাশায় সৌদি আরবের সাথে মিল রেখে ধর্মপাশা সদর ইউনিয়নের দুটি গ্রামে ঈদুল আজহা উদযাপন করা হয়েছে। সদর ইউনিয়নের দশধরি গ্রামের বাসিন্দা ও সুরেশ্বর দরবার শরিফার খলিফা মো. একলাস মিয়ার বাড়িতে মঙ্গলবার সকাল ৯টায় ঈদুল আজহার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। সুরেশ্বর দরবার শরিফের ভক্তবৃন্দ দীর্ঘ চব্বিশ বছর ধরে খলিফা মো. একলাস মিয়ার বাড়িতে সৌদি আরবের সাথে মিল রেখে ঈদের নামাজ আদায় করে আসছে। এদিকে ধর্মপাশা উত্তরপাড়া গ্রামে মো. জুলহাস মিয়ার বাড়িতে একই সময়ে আরো একটি ঈদুল আজহার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়েছে। সুরেশ্বর দরবার শরিফের খলিফা মো. একলাস মিয়া বলেন, ‘আমি সুরেশ্বর দরবার শরিফের হুজুরের কাছে মুরিদ হয়েছি চল্লিশ বছর চলে। আমার খেলফতের বয়স ছব্বিশ বছর। আর সেই সময় থেকেই সৌদি আরবের সাথে মিল রেখে আমরা ঈদ উদযাপন করছি।’

বরিশাল: আল্লাহর সন্তষ্টি লাভের পশু কোরবানির মধ্য দিয়ে বরিশাল নগরীর একটি ওয়ার্ডের কয়েক হাজার পরিবার উদযাপন করছেন পবিত্র ঈদুল আজহা। মঙ্গলবার (২০ জুলাই) সকালে নির্ধারিত সময়ে নামাজ আদায় শেষে পশু কোরবানির মধ্য দিয়ে তারা ঈদুল আজহা উদযাপন করছেন।

 বিভাগীয় শহর বরিশাল সিটি করপোরেশনের ২৩ নম্বর ওয়ার্ডের তাজকাঠীর হাজি বাড়ি এলাকায় মঙ্গলবার সকাল ৮টায় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়া এদিন সকাল ৮টা থেকে ১০টা পর্যন্ত বরিশাল মহানগর আরো বেশ কিছু এলাকাসহ বাবুগঞ্জ, হিজলা, মেহেন্দিগঞ্জ, মুলাদী, বাকেরগঞ্জ, সদর উপজেলায় ১০ হাজারের অধিক মানুষ ঈদের জামাতে অংশ নেয়। বিভাগের মধ্যে কমপক্ষে ৭৫টি মসজিদে ঈদুল আজহার জামাতের আয়োজন করা হয়েছে।

চট্টগ্রামের চন্দনাইশ এলাহবাদ জাহাগীরিয়া শাহ্সুফি দরবার শরীফের অনুসারীরা পৃথিবীর কোনো প্রান্তে চাঁদ দেখা গেলে তার সঙ্গে তাল মিলিয়ে রোজা, ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আজহাসহ সব ধরনের ধর্মীয় অনুষ্ঠান উদযাপন করেন।  

বরিশাল নগরের ২৩ নম্বর ওয়ার্ডের তাঁজকাঠী হাজিবাড়ি শাহসুফি জাহাগীরিয়া জামে মসজিদ পরিচালনা কমিটির সভাপতি শাহ্সুফি দরবার শরীফের অনুসারী আমির হোসেন মিঠু জানান, সকালে বৃষ্টিমুখর আবহাওয়া থাকলেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে যথাসময়ে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। মূলত তারা সৌদি আরবের সাথে সামঞ্জস্য রেখে সব ধর্মীয় অনুষ্ঠান উদযাপন করে আসছেন।  

বোয়ালমারী (ফরিদপুর)  : ফরিদপুরের বোয়ালমারী উপজেলায় ১৩ গ্রামে সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের সঙ্গে মিল রেখে ঈদুল আজহার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়েছে । মঙ্গলবার (২০ জুলাই) সকাল ১০টায় মাইটকুমড়া জামে মসজিদ, সাড়ে ১০টায় রাখালতলী জামে মসজিদ ও সহস্রাইল দায়রা শরীফে পবিত্র ঈদুল ফিতরের তিনটি জামায়াত অনুষ্ঠিত হয়। জানা যায়, বোয়ালমারী উপজেলার শেখর ও রুপাপাত ইউনিয়নের ১৩টি গ্রামের মানুষ সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের সঙ্গে মিল রেখে একদিন আগে প্রতিবছর ঈদ উদযাপন করেন। তাই অন্য এলাকার একদিন আগে ওই ১৩ গ্রামের মানুষ ঈদ উদযাপন করেছেন। আলফাডাঙ্গা সরকারি ডিগ্রি কলেজের অর্থনীতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ও কাটাগড় গ্রামের বাসিন্দা মো. মাহিদুল হক বলেন, বোয়ালমারী উপজেলার শেখর ও রূপাপাত ইউনিয়নের ১৩ গ্রামের মানুষ বছরের দুইটি ঈদ উৎসব সৌদি আরবের সাথে মিল রেখে ঈদের নামাজ আদায় করেন। আমিও তাদের সাথে ঈদ উৎসব পালন করি। তিনি সহস্রাইল দায়রা শরীফে ঈদুল আযহার নামাজ আদায় করেছেন বলে জানান।

শরীয়তপুর সদর: সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে শরীয়তপুরের ছয় উপজেলার ৫০ গ্রামের মানুষ ঈদুল আজহা উদযাপন করছেন। মঙ্গলবার (২০ জুলাই) সকাল সাড়ে ৯টায় জেলার প্রধান ও বড় জামায়াত অনুষ্ঠিত হয় নড়িয়ার সুরেশ্বর দরবার শরীফ মাঠ প্রাঙ্গণে। জানা যায়, সৌদিসহ মধ্যপ্রাচ্যের ৬৯ দেশে সোমবার (১৯ জুলাই) চাঁদ দেখা যাওয়ায় পরের দিন ওই সব দেশে ঈদুল আজহা উদযাপিত হচ্ছে। তাই তাদের সঙ্গে মিল রেখে শরীয়তপুরের শাহ্ সুরেশ্বরীর (রা.) অনুসারীরা ঈদুল আজহা উদযাপন করছেন। সুরেশ্বর দরবার শরিফের পীর সৈয়দ তৌহিদুল হোসাইন শাহীন নূরী বলেন, আমরা শুধু ঈদ না সব ধর্মীয় উৎসব সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে পালন করি। তিনি আরও বলেন, মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টায় সুরেশ্বর দরবার শরীফ মাঠ প্রাঙ্গণে ঈদুল আজহার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। শরীয়তপুরের ছয় উপজেলার ৫০ গ্রামের অর্ধলক্ষাধিক ধর্মপ্রাণ মুসলমান বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনা ও ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্যদিয়ে ঈদ উদযাপন করেছেন।


পঞ্চগড় : পঞ্চগড় সদর উপজেলার হাফিজাবাদ ইউনিয়নের উত্তর কামারপাড়া জামে মসজিদে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। তবে এ জামাতে চার পরিবারের মাত্র সাত জন মুসল্লি অংশ নেন। তবে একদিন আগে ঈদের জামাত আদায়ের বিষয়টিতে ওই মসজিদের অধিকাংশ মুসল্লি বিরোধিতা করেন। এ নিয়ে উভয়পক্ষের মধ্যে উত্তপ্ত পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে উভয়পক্ষকে শান্ত করে। পরে পুলিশের পাহারায় ওই সাত মুসল্লি ঈদের নামাজ আদায় করেন।
 
সাতক্ষীরা : জেলার সাতটি স্থানে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। সৌদি আরবের সাথে মিল রেখে সদর উপজেলার ভাড়ুখালী বাজারে সকাল ৮টায় অনুষ্ঠিত ঈদ জামাতে ইমামতি করেন মো. মাহবুবুর রহমান। এছাড়া সদর উপজেলার বাউখোলা, তালার ইসলামকাটি ও শ্যামনগরের কাশিমারীসহ সাত জায়গায় ঈদুল আজহার জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। নামাজের পরে সামর্থ্য অনুযায়ী কোরবানি দেন মুসল্লিরা।

হিলি : চাঁদ দেখার ওপর ভিত্তি করে বুধবার (২১ জুলাই) সারাদেশে ঈদুল আজহা উদযাপন হবে। তবে এর একদিন আগেই মঙ্গলবার বিরামপুরে সৌদিআরবের সঙ্গে মিল রেখে দুটি ইউনিয়নের প্রায় ১৫টি গ্রামে ঈদুল আজহার জামাত হয়েছে। বিগত কয়েকবছর ধরে ওই গ্রামগুলোতে সৌদির সঙ্গে ‍মিল রেখে ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আজহা পালিত হয়ে আসছে।

গাজীপুর : সদর উপজেলার পূর্বডগরী (দক্ষিণ পাড়া) দীগি চালা গ্রামে ঈদুল আজহার জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। সকাল ৭টায় গাজীপুর উপজেলার মির্জাপুর ইউনিয়নের ওই গ্রামের দারুল ইরফান দরবার শরীফ জামে মসজিদে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়। তবে বুধবার (২১ জুলাই) মুসল্লিরা পশু কোরবানি দেবেন। জয়দেবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মামুন-আল-রশিদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

বরগুনা : বরগুনায় সৌদি আরবের সাথে মিল রেখে অর্ধশতাধিক পরিবারও পালন করেছে ঈদুল আজহা। ওইসব এলাকার মুসল্লিরা সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের সঙ্গে মিল রেখে একদিন আগে প্রতিবছর ঈদ উদযাপন করেন।

টাঙ্গাইল: টাঙ্গাইলের একটি গ্রামের ৪০টি পরিবার ঈদযাপন করলো পবিত্র ঈদুল আজহা। মঙ্গলবার (২০জুলাই) সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর সাথে মিল রেখে দেলদুয়ারে উপজেলার লাউহাটি ইউনিয়নের শশীনাড়া গ্রামের ওই ৪০পরিবার ঈদ উদযাপন করে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন লাউহাটি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম খান ফিরোজ। চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম খান ফিরোজ জানান, সকাল ৮ টায় স্থানীয় মসজিদে ঈদের নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। গ্রামের দুই শতাধিক নারী পুরুষ ঈদের নামাজ আদায় করেন। সরকারি নির্দেশনা মেনে ঈদের নামাজ মসজিদে আদায় করলেও কোনো ধরনের স্বাস্থ্য বিধি মানতে দেখা যায়নি মুসুল্লীদের। নামাজে স্থানীয়রা ছাড়াও বিভিন্ন জেলা থেকে আসা মুসুল্লীরা অংশগ্রহণ করেন। নামাজ শেষে পশু কোরবানী করা হয়। তিনি আরো জানান. ২০১২ সাল থেকে ইউনিয়নের দাড়িয়াপুর এলাকার শশীনাড়া গ্রামের ৪০টি পরিবার সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর সাথে মিল রেখে ঈদ উদযাপন করে আসছেন।

চট্টগ্রাম : প্রতিবছরের মতো এবারও চট্টগ্রামের সাতকানিয়ার মির্জাখীল দরবার শরিফ ও চন্দনাইশের জাঁহাগিরিয়া শাহছুফি মমতাজিয়া দরবার শরিফের অনুসারীরা সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে ঈদুল আজহার নামাজ আদায় করেন। সাতকানিয়ার মির্জারখীল দরবার শরিফের সৈয়দ মাওলানা আবদুর রহমান শাহ জাঁহাগিরি ও চন্দনাইশ কাঞ্চনাবাদ ইউনিয়নের জাঁহাগিরিয়া শাহসুফি মমতাজিয়া দরবারের শাহজাদা মাওলানা মো. মতি মিয়া মনসুর জানান, মঙ্গলবার সৈয়দ মো. আলীর ইমামতিতে প্রথম জামাত সকাল ৮টায় ও দরবারের শাহজাদা মাওলানা মো. মনজুর আলীর ইমামতিতে দ্বিতীয় জামাত সকাল সাড়ে ৮টায় অনুষ্ঠিত হয়েছে।  অন্যদিকে সাতকানিয়া দরবার শরীফের সৈয়দ মাওলানা আবদুল হামিদ শাহ জাঁহাগিরির (নুরুল আরেফিন) ইমামতিতে মির্জাখীল দরবার শরিফে সকাল ৯টায় ও সৈয়দ মাওলানা ড. মাকসুদুর রহমান শাহ জাঁহাগিরির ইমামতিতে সকাল সাড়ে ৯টায় একই দরবারে দ্বিতীয় জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

নারায়ণগঞ্জ : ফতুল্লায় পবিত্র ঈদুল আজহার নামাজ ও পশু কোরবানিসহ ঈদ উদযাপন করেছেন ‘জাহাগিরিয়া তরিকার’ অনুসারীরা। বেলা এগারোটায় সদর উপজেলার ফতুল্লা থানার লামাপাড়া এলাকায় হযরত শাহ্ সুফি মমতাজিয়া এতিমখানা ও হেফজখানা মাদ্রাসায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঈদের নামাজ আদায় করে ঈদ উদযাপন করেন তারা। এই ঈদ জামাতে ইমামতি করেন মুফতি মাওলানা আনোয়ার হোসেন শুভ। ঢাকার কেরানীগঞ্জ, ডেমরা, সাভার, গাজীপুরের টঙ্গী ও নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন উপজেলা থেকে শত শত মুসুল্লি এসে ঈদ জামাতে অংশ নেন।

 

শেয়ার করুন
0 মন্তব্য

মতামত দিন

Related Articles