জামায়াত-বিএনপি বহন করে চলছে বঙ্গবন্ধু হত্যার জঘন্য রাজনীতি : ইনু

দ্বারা hello@anbnews24.com
জামায়াত-বিএনপি বহন করে চলছে বঙ্গবন্ধু হত্যার জঘন্য রাজনীতি : ইনু
বিশেষ প্রতিনিধি :১৫ আগস্ট জাতির ইতিহাসে বড় বিয়োগান্তক ঘটনা। খুনিরা এ হত্যাকান্ডের  মধ্যদিয়ে জঘন্যতম বর্বরতা, নির্মমতা, পৈশাচিকতার প্রকাশ ঘটিয়েছিল। দুর্ভাগ্যজনকভাবে বঙ্গবন্ধু হত্যার জঘন্য রাজনীতি বিএনপি-জামায়াতসহ কতিপয় দল এবং তথাকথিত কিছু বুদ্ধিজীবী এখনো বহন করে চলেছে।এরা দেশকে সংবিধানের বাইরে ঠেলে দেয়ার অস্বাভাবিক পরিস্থিতি তৈরি করার ষড়যন্ত্র-চক্রান্তের রাজনীতি করে চলেছে।
শুক্রবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে শহীদ কর্নেল তাহের মিলনায়তনে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় সাবেক তথ্য মন্ত্রী জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু  সভাপতির বক্তব্যে এসব কথা বলেন ।
 
  তিনি আরও বলেন ,এরা বাংলাদেশ রাষ্ট্রের শত্রু। এরা বাংলাদেশের জন্য বিপদ, হুমকি এবং বিষবৃক্ষ। বঙ্গবন্ধুর হত্যাকান্ড একটি সুপরিকল্পিত হত্যাকান্ড। খুনিরা বঙ্গবন্ধুকে শুধু শারীরিকভাবে হত্যা করেনি, খুনিরা বাংলাদেশ রাষ্ট্রের আত্মাকেই হত্যা করতে চেয়েছিল। খুনিরা হত্যাকান্ডের   পর পাকিস্তানী আত্মাকে বাংলাদেশ রাষ্ট্রের দেহে প্রতিস্থাপন করতে সংবিধান থেকে চার নীতি মুছে ফেলে, ইতিহাসের ভাগাড় থেকে কুখ্যাত দ্বি-জাতিতত্ত্ব ও ধর্মীয় সামপ্রদায়িকতা তুলে আনে, বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস নির্বাসিত করে, বেতার-টিভি-গণমাধ্যমে বঙ্গবন্ধু নামটি উচ্চারণ বন্ধ করে দেয়, রাজাকার-আলবদর-পাকিস্তানি দালালদের সমাজে-রাষ্ট্রে-রাজনীতি পুনঃপ্রতিষ্ঠা করে। বাংলাদেশকে পাকিস্তানের পথে ঠেলে দেয়।
জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার বলেছেন, দুর্নীতি-লুটপাট বন্ধ করেই বঙ্গবন্ধুর আত্মাকে শান্তি দিতে হবে। তিনি বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু হত্যাকা- বাংলাদেশ রাষ্ট্রের ওপর মুক্তিযুদ্ধে পরাজিত শক্তির প্রতিশোধমূলক সবচেয়ে ভয়ঙ্কর আঘাত। শুধু বঙ্গবন্ধুকে হত্যাই নয়, জাসদসহ মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তিকে ধ্বংস করাই ছিল ১৫ আগস্টের খুনিদের প্রধান উদ্দেশ্য ছিল। খুনি মোশতাকের ৮৩ দিনের শাসনে আওয়ামী লীগ, জাসদ, সিপিবিসহ মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তির ওপর রাষ্ট্রীয় নিপীড়ন-নির্যাতন তারই প্রমাণ দেয়। তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধের পর সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে বিপ্লবী জাতীয় সরকার গঠন করা হলো, পাকহানাদার বাহিনীর উচ্ছেদের সাথে সাথেই পাকিস্তানের রেখে যাওয়া প্রশাসন-আইন-বিধি-ব্যবস্থা এবং পাকহানাদার বাহিনীর সহযোগী সামরিক-বেসামরিক অফিসার-কর্মচারীদের উচ্ছেদ করা হলে ষড়যন্ত্রের রাজনীতির বীজ তলাতেই ধ্বংস হয়ে যেত। বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের  মতো বিয়োগান্তক ঘটনা এড়ানো যেত। তিনি আরও  বলেন, বঙ্গবন্ধুর মহিমা সমুন্নত রাখতে সংবিধানে বর্ণিত চার রাষ্ট্রীয় মূলনীতি গণতন্ত্র, সমাজতন্ত্র, ধর্মনিরপেক্ষতা ও জাতীয়তাবাদকে রাষ্ট্র, রাজনীতি, সমাজ ও অর্থনীতিসহ সকল ক্ষেত্রে বাস্তবায়ন করতে হবে। চার মূলনীতির সাথে সাংঘর্ষিক সকল আইন-কানুন-বিধি-ব্যবস্থা বাতিল করতে হবে।
জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনুর সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন, দলটির সহ-সভাপতি মীর হোসাইন আখতার, নুরুল আখতার, ফজলুর রহমান বাবুল, বীর মুক্তিযোদ্ধা শফি উদ্দিন মোল্লা, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহর আলী চৌধুরী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নাদের চৌধুরী, মোহাম্মদ মোহসীন, রোকনুজ্জামান রোকন, ওবায়দুর রহমান চুন্নু, সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ নুরুন্নবী প্রমুখ।
 
 
 
শেয়ার করুন
0 মন্তব্য

মতামত দিন

Related Articles