হামলার অভিযোগে আইন ও বিচার বিভাগের ৩ শিক্ষার্থী বহিষ্কার

দ্বারা hello@anbnews24.com

শওকত জাহান, জাককানইবি প্রতিনিধি: জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন ও বিচার বিভাগের ২০১৫-২০১৬ (১০ম ব্যাচ) শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী মোঃ শফিকুল ইসলামের উপর একই বিভাগের ২০১৭-২০১৮ (দ্বাদশ ব্যাচ) শিক্ষাবর্ষের অপর ৩ শিক্ষার্থী আব্দুল্লাহ আল ওয়াহিদ, তারেক রহমান ও মোঃ হাবিবুল্লাহ জামি প্রকাশ্যে হামলা করায় তিনজনকে ১ সেমিস্টারের জন্য বহিষ্কার করা হয়েছে।

গত ৯ সেপ্টেম্বর (বৃহস্পতিবার) সন্ধ্যায় আড্ডারত অবস্থায় ১০ম ব্যাচের মোঃ শফিকুল ইসলামের (শফিকুল) সাথে দ্বাদশ ব্যাচের মোঃ হাবিবুল্লাহ জেমির(জামি) বাকবিতণ্ডা হয়।এক পর্যায়ে শফিকুলকে জামি বাজে গালি দেওয়ায়, শফিকুল জামিকে থাপ্পর দেয়।জামিকে ১০ম ব্যাচের অন্যান্য শিক্ষার্থীরা বিষয়টি সমাধানের আশ্বাস দেওয়ার পরেও, জামি অপর ২ বন্ধু আব্দুল্লাহ আল ওয়াহিদ(ওয়াহিদ),তারেক রহমান(তারেক) এবং আরও কয়েকজনকে সাথে নিয়ে প্রায় ৪০ মিনিট পরে ঘটনাস্থলে শফিককে হামলা করতে আসলে, আড্ডারত দশম ব্যাচের শিক্ষার্থীরা তাদেরকে সেখান থেকে ফিরিয়ে দেয়।কিন্তু প্রায় ২০ মিনিট পর তার বন্ধুদের নিয়ে আবার ঘটনাস্থলে শফিকের কাছে আসে, এসেই তারেক পিছন থেকে শফিককে লাথি দিয়ে ফেলে দিয়ে ওয়াহিদ গলায় চেপে ধরে জামি সহ অন্যান্যরা শফিককে মারধর করে।এরপর গুরুতর আহত অবস্থায় শফিককে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

এ ঘটনার প্রেক্ষিতে, বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টরিয়াল বডির কাছে অভিযোগ দেওয়ার পর, তদন্ত করে সত্যতা পায়।তার পরিপ্রেক্ষিতে ১৩ আগস্ট (সোমবার) শৃঙ্খলা বোর্ডের সুপারিশ ও পরবর্তী সিন্ডিকেটের অনুমোদন সাপেক্ষে ওয়াহিদ, তারেক ও জামিকে ৩য় বর্ষ ১ম সেমিস্টার (এক সেমিস্টারের জন্য) হতে বহিষ্কার করা হয়েছে।

এ শাস্তির ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর উজ্জ্বল কুমার প্রধান বলেন, সকলকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শৃঙ্খলা মানতে হবে এবং বিশ্ববিদ্যালয়কে এগিয়ে নিতে হলে অবশ্যই বিশ্ববিদ্যালয়ের বিধি গুলো সকলকে মানতে হবে।এমন ঘটনার পুণরাবৃত্তি যেন না হয়, এবং বিধি ও শৃঙ্খলাগুলো সকলকে মানার আহবান করছি।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার ড. হুমায়ন কবীর বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টরিয়াল বডির কাছে বহিষ্কৃত শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে অন্যায় আচরণের অভিযোগ আসে।অভিযোগের বিষয়ে তদন্ত করে, শৃঙ্খলা বোর্ডের সিদ্ধান্ত মোতাবেক সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন হয়েছে।

আইন ও বিচার বিভাগের প্রধান মুহাম্মদ ইরফান আজিজ বলেন, শৃঙ্খলা বোর্ড যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে, বিভাগের কোনো বক্তব্য নেই।বিভাগ শৃঙ্খলা বোর্ডের সিদ্ধান্তকে সম্মান জানায়।

 যোগাযোগ করা হলে, এ বিষয়ে মোঃ হাবিবুল্লাহ জামির কোনো বক্তব্য পাওয়া যায় নি।

শেয়ার করুন
0 মন্তব্য

মতামত দিন

Related Articles