নালিতাবাড়ীতে সরকারে এক জমি দুইবার বিক্রী – মালিকানা নিয়ে ভাড়াটিয়ার সাথে দ্বন্ধ

দ্বারা hello@anbnews24.com
নালিতাবাড়ীতে সরকারে এক জমি দুইবার বিক্রী - মালিকানা নিয়ে ভাড়াটিয়ার সাথে দ্বন্ধ

 

বিচার পাচ্ছেনা বৃদ্ধা পরিবার

নিজস্ব প্রতিনিধি: শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলার পোড়াগাও ইউনিয়নের বেকিকুড়া মৌজায়   আমবাগান বাজারের সরকারের  “খ”শ্রেণী খাস খতিয়ানের  আধাশতাংশ জমি একই মালিক আব্দুর রউফ নামের একজন  দুইবার বিক্রি করার  কারনে ভাড়াটিয়া ও খরিদা সূত্রে মালিকের মধ্যে দ্বন্ধ চলছে।

এবিষয়ে আদালতে একাধিক মামলা হয়েছে।এ বিষয়ে স্থানীয় চেয়ারম্যানের নিকট বিচার  চেয়ে হতাশ বৃদ্ধা পরিবার । 

বিভিন্ন তথ্য সূত্রে জানাগেছে , বেকী কূড়া মৌজায় ৩৫ নং খতিয়ানের ২৬৩.২৬৩,২৬৫,২৬৬ নংদাগে   ৮৩ শতাংশ জমি ১৯৭৪ সনের ৪৫ নং আইনের বিধানে বাংলাদেশ সরকারের অর্পিত সম্পত্তি হিসেবে রের্কড হয় । তারমধ্যে ২৬৩ নংদাগে ৩৪ শতাংশ জমির মধ্যে স্থানীয় দখলদার মো. নিজাম উদ্দিন ১ শতাংশ জমি বিক্রী করেন আব্দুর রউফ ও ঞাছেণ আলীর নিকট । নিজাম উদ্দিন দখল বুঝিয়ে দিলে তারা উভয়ে আমবাগানের বাজারস্থ ঐ জমিতে দোকানপাঠ নির্মাণ করে ব্যবসা করেন। আব্দুরউফের একসময় জীবন জীবিকার তাগিদে ঢাকা যাওয়ার পূর্বে বেকিকুড়া গ্রামের মো. আব্দুল মোতালেব খলিফার নিকট গ্রাম্য দলিলে বিক্রি করেন । মোতালেব খলিফা ক্রয়সূত্রে মালিক হয়ে একটি হাল্ফ বিল্ডিং করে ভাড়া দেন আজগর আলী দুলাল মাষ্টারের নিকট ।

আজগর আলী দুলাল মাস্টার বেশ কিছুদিন ভাড়া পরিশোধ করে আসাবস্থায় হঠাৎ ভাড়া দেওয়া বন্ধ করে দেন ।ভাড়া না দেওয়ার কারন আজগর আলী দুলাল মাস্টার দাবী করেন মোতালেব খলিফার নাতি ইব্রাহিমের নিকট দলিল করে নিয়েছেন।

এ ব্যাপারে মোতালেব খলিফা ম্যজিষ্ট্রেট আদালতে মামলা করেন । মামলাটি নালিতাবাড়ী থানায় তদন্তের জন্য আসে । নালিতাবাড়ী থানায় উভয় পক্ষ ও স্থানীয় সাবেক পোড়াগাও ইউপি সদস্য কামাল হোসেন,সাবেক সদস্য হাবিবুর রহমান ও আব্দুর রউফ  সহ অনেকেই বসেন।

ঐ বৈঠকে আজগর আলী দুলাল মাস্টারের কোন মালিকানা প্রতিষ্ঠা না হওয়ায় সিদ্ধান্ত হয় যে,  আজগর আলী দুলাল নিয়মিত ভাড়া দিয়ে যাবেন। এই সিদ্ধান্তে দুলাল মাস্টার কিছুদিন ভাড়া দিয়ে যায় কিন্ত; বিগত ৬ মাস পূর্বে আবার ভাড়া বন্ধ দেওয়া বন্ধ করেন।এ বিষয়টি নালিতাবাড়ী থানা পুলিশকে জানালে,নালিতাবাড়ী থানা পুলিশ দুলাল মাস্টারকে ১ মাসের মধ্যে দোকান ঘর ছেড়ে দিতে মৌখিক নির্দেশ দেন ।

ইতিমধ্যে মোতালেবের নাতি ইব্রাহিম ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মোতালেবের বিরুদ্ধে গচ্ছিত রাখা ৬ লক্ষ টাকা আত্মসাৎ করার মামলা করেছেন । মামলাটি নলিতাবাড়ী থানায় তদন্তাধীন ।

অপর দিকে আব্দুর রউফ দাতা দলিল মূলে নালিশী দোকান ঘরের মালিকানা দাবী করে দেওয়ানী আদালতে মামলা ঠুকেছেন মোতালেব খলিফার নাতি ইব্রাহিম।

 বৃদ্ধা আব্দুল মোতালেবের স্ত্রী তাদের উপর মিথ্যা মামলা মোকদ্দমা করে হয়রানী , ভাড়াটিয়া দুলাল মাস্টারের ভাড়া না দেওয়া এবং সর্বোপরি বৃদ্ধা পরিবারের প্রতি মানবাধিকার লঙ্ঘন করার বিষয়ে স্থানীয় পোড়াগাও ইউনিয়ন পরিষদে সু-বিচারের জন্য আবদেন করেন ।

বৃদ্ধা মোতালেবের স্ত্রী জানান চেয়ারম্যান এ বিচার করতে পারবেন না বলে জানিয়ে দিয়েছন ।   

শেয়ার করুন
0 মন্তব্য

মতামত দিন

Related Articles